মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সিটিজেন চার্টার

এনজিও নির্বাচনঃ

*  পত্রিকায় বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আগ্রহী এনজিও এর নিকট থেকে Expression Of Interest(EOI)আহবান করা হয়।

* EOIবাছাই চুড়ান্ত হওয়ার পর নির্বাচিত এনজিওদেরকে ১৫(পনের  দিনের মধ্যে Request for Proposal (RFP)দাখিল করার জন্য  

    অনুরোধ করা হয়।

* নির্বাচিত এনজিওদের থেকে Request for Proposal (RFP)পাওয়ার পর তা পুনরায় যাচাই-বাছাই করা হয় এবং  চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য  

   Subvention Committeeতে উপস্থাপন করা  হয়।

* Subvention Committeeকর্তৃক নির্বাচিত এনজিওদের তালিকা  দাতা গোষ্ঠীর অনুমোদনের পর নির্ধারিত শর্তে ব্যুরোর সাথে অনুমোদিত এনজিওদের

    একটি দ্বিপাক্ষিকচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।স্বাক্ষরিত চুক্তি মোতাবেক এনজিও কর্তৃক নির্ধারিত এলাকায় কর্মসূচী  বাস্তবায়ন করা হয়।

* যে সকল এনজিওর EOI, RFP নিরীক্ষা/যাচাই-বাছাই কমিটি কর্তৃক অনুমোদনের অযোগ্য হয় তাদেরকে অযোগ্যতার কারণ ১৫(পনের)দিনের মধ্যে

   জানিয়ে দেয়া হয়।

*  কর্মসূচী বাস্তবায়ন সংক্রান্ত অনিয়মের বিষয়ে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান জেলা উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর সহকারী পরিচালক/প্রকল্প পরিচালক/মহাপরিচালক

   বিএনএফই বরাবর লিখিতভাবে জানাতে পারেন।

* অভিযোগ প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানকে অভিযোগের বিষয়ে গৃহীত ব্যবস্থাদি সম্পর্কে জানানো হয়।

* কর্মসূচী বাস্তবায়নকারী সংশিস্নষ্ট এনজিও কর্মসূচী বাস্তবায়নে কোন সমস্যার সম্মুখীন হলে Upazila Non-Formal Education Committee (UNFEC),

   District Non-Formal Educaiton  Committee (DNFEC),জেলা উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো/ প্রকল্প পরিচালক/মহাপরিচালক বিএনএফইকে

   লিখিতভাবে জানাতে পারেন।

* উদ্ভূত সমস্যা সমাধানের বিষয়ে ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে সংশিস্নষ্ট এনজিওকে গৃহীত ব্যবস্থা সম্পর্কে জানানো হয়।

* এনজিও নির্বাচনের বিষয়ে সরকারের ক্রয় সংক্রান্ত বিদ্যমান আইন(PPR-2008) অনুসরণ করা হয়।

২। এনজিওদের বিরুদ্ধে প্রাপ্ত অভিযোগ নিষ্পত্তিঃ

  *এনজিও’র সাথে স্বাক্ষরিত দ্বিপাক্ষিক চুক্তি অনুযায়ী কর্মসূচী বাস্তবায়নে এনজিও’'র অনিয়ম সংক্রান্ত কোন অভিযোগ উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর সংশ্লিষ্ট

    জেলা কার্যালয়/প্রকল্প অফিস/অন্য কোন সরকারী দপ্তর/ জনসাধারণ হতে পাওয়া গেলে তা তদন্ত পূর্বক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

                         নিম্নে শাস্তির ধরণ উলেস্নখ করা হলোঃ

* অভিযোগ মিথ্যা প্রমানিত হলে সংশ্লিষ্ট এনজিওকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়। অভিযোগ প্রমানিত হলে সংশ্লিষ্ট এনজিওকে কর্মসূচী  

   বাস্তবায়ন থেকে সাময়িকভাবে বিরত (Debar) রাখা হয় অথবা তাদের সাথে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি বাতিল করা হয় এবং প্রদত্ত অর্থ কর্তন করা হয়।

 ৩। ব্যুরোতে বা ব্যুরোর যে কোন প্রকল্পে কনসালটেন্সি  ফার্ম/ কনসালটেন্ট নিয়োগ (দেশী /বিদেশী)ঃনিম্নোক্ত প্রক্রিয়ায় কনসালটেন্সি ফার্ম/ কনসালটেন্ট

      নিয়োগ করা হয়ঃ

* পত্রিকায় বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে Expression of Interest (EOI)সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালক বরাবরে জমা প্রদানের জন্য আবেদন পত্র আহবান করা হয়।

* নিরীক্ষা/যাচাই-বাছাই কমিটি কর্তৃক উক্ত EOIবাছাই করার পর  নির্বাচিত ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের তালিকা ব্যুরোর প্রধান কার্যালয়ের নোটিশ বোর্ডে ঝুলিয়ে/

   টাঙ্গিয়ে দেয়া হয় এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানকে পত্রের মাধ্যমে ১৫(পনের) দিনের মধ্যে Request for Proposal (RFP)দাখিল করার জন্য

   অনুরোধ করা হয়।

* নির্বাচিত কনসালটেন্সি ফার্ম/কনসালটেন্ট থেকে Request for Proposal (RFP)পাওয়ার পর তা পূনরায় যাচাই-বাছাই করার জন্য নিরীক্ষা/যাচাই-

  বাছাই কমিটিতে প্রেরণ করা হয়। উক্ত কমিটি  নির্বাচিত ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রণয়ন করে তা  Subvention Sub-Committee

  তে প্রেরণ করে।

* Subvention Sub-Committeeকর্তৃক উক্ত তালিকা চুড়ান্ত অনুমোদনের জন্য Subvention Committee তে উপস্থাপন করা হয়।

  Subvention Committeeকর্তৃক নির্বাচিত ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের তালিকা বুারোর নোটিশ বোর্ডে টাঙ্গিয়ে দেয়া হয় এবং বিষয়টি নির্বাচিত ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানকে

  পত্রের মাধ্যমে ১৫ (পনের ) দিনের মধ্যে জানিয়ে দেওয়া হয়।

* Subvention Committeeকর্তৃক চুড়ান্ত নির্বাচিত ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের তালিকা দাতা গোষ্ঠীর অনুমোদনের পর নির্ধারিত শর্তে ব্যুরোর সাথে

   সংশ্লিষ্টব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের সাথে একটি  দ্বিপাক্ষিকচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তি মোতাবেক ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠান কর্তৃক কর্মসূচী বাস্তবায়ন করা হয়।

* যে সকল ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের EOI , RFPনিরীক্ষা/যাচাই-বাছাই কমিটি কর্তৃক অনুমোদনের অযোগ্য হয় তাদেরকে অযোগ্যতার কারণ উল্লেখপূর্বক

   ১৫(পনের) দিনের মধ্যে পত্রের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া  হয়।

* এনজিও নির্বাচনের বিষয়ে সরকারের ক্রয় সংক্রামত্ম বিদ্যমান আইন(PPR-2008) অনুসরণ করা হয়।

৪। বিভিন্ন ব্যক্তি/দপ্তরে/ সংস্থায় উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর বিভিন্ন উপকরণ/লার্নিং ম্যাটারিয়ালস্ সরবরাহ সংক্রানত্ম ঃ

* উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কর্মসূচী বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন শিক্ষা উপকরণ  ব্যবহার করা হয়। পাঠ্যপুস্তক, সহায়ক পুসত্মক, ফ্লিপচার্ট, প্রশিক্ষণ ম্যানুয়াল, পোষ্টার,

   ক্যালেন্ডার, স্টীকার, ব্রশিউয়ার,গণশিক্ষা সংক্রামত্ম  তথ্য সম্বলিত ম্যাগাজিন।

* উপরোক্ত উপকরণ/লার্নিং ম্যাটারিয়ালস্ কারাগার, মসজিদ ভিত্তিক পাঠাগার, শ্রম মন্ত্রণালয়ের অধীন পরিচালিত গণশিক্ষা কার্যক্রম, স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানে

    বিনামূল্যে/ছাপা খরচে ব্যুরো থেকে সরবরাহ করা হয়।

* কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে উপকরণ পাওয়ার জন্য মহাপরিচালক বরাবরে আবেদন করতে হয়।

* আবেদন প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে উল্লেখিত উপকরণ/ লার্নিং ম্যাটারিয়ালস্ বিনামূল্যে/ছাপা খরচে (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) সরবরাহ  করবে।

৫।সামাজিক উদ্বুদ্ধকরণঃ

* উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কর্মসূচী সফল বাস্তবায়নের জন্য সামাজিক উদ্বুদ্ধকরণ সভা করা হয়। সাক্ষরতা কর্মকান্ডে স্থানীয় জনগণের অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণ,

   সচেতনতা সৃষ্টি ও তাদের সংগঠিত করে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা পরিবেশ তৈরীর লক্ষ্যে সামাজিক উদ্বুদ্ধকরণ সভা করা হয়। এরই অংশ হিসাবে ০৮ সেপ্টেম্বর

   আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস পালন করা হয়। মিনা দিবস, সাক্ষরতা সপ্তাহ, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, আমত্মর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও অত্যন্ত গুরুত্ব  

   সহকারে পালন করতে হয়। রাজধানী, জেলা ও উপজেলায় স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রচার-প্রচারণা, সভা,

   মিছিল, র‌্যালী, সেমিনার, কর্মশালা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নাটক ইত্যাদি কর্মকান্ড পরিচালিত হয় যাতে করে জনসাধারণ এ বিষয়ে সচেতন হয়।

* এ বিষয়ে কোন তথ্য বা সহযোগিতার প্রয়োজন হলে মহাপরিচালক, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো অথবা সংশ্লিষ্ট প্রকল্প অফিসে যোগাযোগ করা যাবে।

৬।শিক্ষা ব্যুরোর আওতাধীন পিএলসিইএইচডি-২ প্রকল্পের অধীনে গবেষণা কেন্দ্র স্থাপন (NFE-RC)ঃ

 *উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর আওতাধীন মানব উন্নয়নের জন্য সাক্ষরতা উত্তর ও অব্যাহত শিক্ষা প্রকল্প-২ এর আর্থিক সহযোগিতায় এবং দুই জন পরামর্শকের

   নেতৃত্বে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার সার্বিক কার্যক্রমের তথ্য ও উপকরণ নিয়ে একটি শক্তিশালী গবেষতা কেন্দ্র (NFE-RC) নির্মানের কাজ চলছে। অদূর

   ভবিষ্যতে সরকারী-বেসরকারী পর্যায়ের যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান উক্ত গবেষনা কেন্দ্রে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা বিষয়ে পড়াশুনা ও গবেষণার সুযোগ পাবেন।

৭।উপানুষ্ঠানিক  শিক্ষা ব্যুরো-ম্যাপিং (NFE-MAPPING)ঃ

* আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থা ইউনেস্কোর আর্থিক সহযোগিতায় উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর মাধ্যমে বাংলাদেশে নন-ফরমাল এডুকেশনের ম্যাপিং কার্যক্রম

   চলমান রয়েছে। এর মাধ্যমে নন-ফরমাল সেক্টরে কর্মরত বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি/ বিদেশী সংস্থার তালিকা, তাদের কার্যক্রমের এলাকা, কার্যক্রম ইত্যাদি

   বিষয়ের তথ্য সংগ্রহ করা হচেছ। সংগৃহীত তথ্যাবলী পরবর্তীতে এনএফই এমআইএস (NFE-MIS) এর সাথে ডাটা বেইস করা হবে।

৮।উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো-এমআইএস (NFE-MIS)t

* উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর আওতায় সমগ্র বাংলাদেশের উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার চলমান কার্যক্রমের তথ্যের ভিত্তিতে ইনফরমেশন টেকনোলজির সর্বোচ্চ সুবিধা

   ব্যবহার করে একটি শক্তিশালী MISস্থাপনের কাজ চলেছে। এর মাধ্যমে পুরম্নষ-মহিলা/ এলাকা/ পেশা/ বয়স ভিত্তিক শিক্ষা ও শিক্ষার হার, ব্যুরোর

   ভবিষ্যৎ কর্মসূচি, বিভিন্ন আইন,বিধি-বিধান, নিয়ম-কানুন, ব্যুরোর মাধ্যমে স্থাপিত স্কুলের সংখ্যা ইত্যাদি তথ্য সংগ্রহ করে ডাটাবেইজ করা হয়।

   উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার বাসত্মবায়ন ও সঠিক চিত্র NFE-MIS  আছে।

৯। বিএনএফইওয়েবসাইট (BNFE-Website)ঃ

* NFE-RC, NFE-MAPPING এবং NFE-MISএর সার্বিক তথ্য দেশ ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উন্মুক্ত করার নিমিত্ত ADB এর আর্থিক সহযোগিতা

   এবং মানব উন্নয়নের জন্য সাক্ষরতা উত্তর ও অব্যাহত শিক্ষা প্রকল্প-২ এর মাধ্যমে দেশী-বিদেশী কনসালটেন্টদের সার্বিক তত্ত্বাবধানে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা

   ব্যুরোর নিজস্ব Web Site স্থাপন করা হয়েছে। Web Site এর ঠিকানা www.bnfe.gov.bd

১০। পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়নঃ

* উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার ব্যুরোর আওতাধীন চলমান প্রকল্পসমূহের কার্যক্রম নিবিড়ভাবে পরীবিক্ষণ ও মূল্যায়ন করা হয়। বর্তমানে চলমান হার্ড-টু-রীচ ও

   পিএলসিইএইচডি-২ প্রকল্পে কর্মরত প্রোগ্রাম অফিসার, মনিটরিং অফিসার, প্রজেক্ট অফিসার ও সহকারী প্রজেক্ট অফিসারগণ প্রতিনিয়ত ব্যুরোর অনুমোদিত

   মনিটরিং ও মূল্যায়ন নীতিমালা অনুযায়ী মাঠ পর্যায়ে কর্মসূচী মনিটরিং করে প্রতিবেদন ব্যুরো এবং প্রকল্প কার্যালয়ে প্রেরণ করে। ব্যুরোর প্রধান কার্যালয় ও

   জেলা কার্যালয়ের কর্মকর্তাগণও উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কর্মসূচী পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন করে প্রতিবেদন দাখিল করেন। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা প্রকল্পের কর্মসূচী

   বাস্তবায়নকারী বেসরকারী সংস্থা সমূহও পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন করে ব্যুরোতে/প্রকল্প কর্তৃপক্ষর কাছে প্রতিবেদন প্রেরণ করেন।

* পিএলসিইএইচডি-২ প্রকল্পের কর্মসূচী পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়নের জন্য Monitoring Partner Agency (MOPA) নামে পেশাগতভাবে দক্ষ একটি

   প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

* আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা UNICEF, CIDA, NORAD, DFID, SDC, World Bank, ADBকর্তৃক তাদের নিজস্ব জনবলের

   মাধ্যমে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার চলমান কর্মসূচী/প্রকল্পের উপর মনিটরিং ও মূল্যায়ন করা হয়।

* উপরোক্ত প্রতিবেদন থেকে প্রাপ্ত ত্রম্নটি বিচ্যুতি অবিরতভাবে সংশোধন ও হালনাগাদ করে কর্মসূচীকে আরো গতিশীল করার ব্যবস্থা নেয়া হয়।

* কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান এ বিষয়ে কিছু জানতে চাইলে সুনির্দিষ্ট কারণ উল্লেখপূর্বক মহাপরিচালক/সংশিস্নষ্ট প্রকল্প পরিচালক বরাবরে আবেদন করতে হয়।

* আবেদন প্রাপ্তির ১৫ (পনের) দিনের মধ্যে সংশিস্নষ্ট বিষয়ে আবেদনকারীকে জানিয়ে দেয়া হয়।

* এছাড়া ব্যুরোর আভ্যন্তরীণ প্রশাসনিক সেবা ও উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো মাধ্যমে প্রদান করা হয়ে থাকে।